পাঠকদের পছন্দ

শিশু মনের চাবিকাঠি । শ্রীতমা দেবনাথ

শাব্দিক প্রতিবেদন
0 রেটিং
59 পাঠক

আমাদের মনের থেকে ও শিশু মনের চাবিকাঠির সন্ধান করে নিতে হবে সবার আগে….

অসুস্থ শিশু সন্তানের সু বিকাশ এবং সুন্দর পরিবেশ পাওয়া যেমন কষ্টসাধ্য তেমনি তাদের বোঝাটা সকলের পক্ষে দুঃসাধ্য। 

যদি আপনার শিশু, বা আপনার চেনা শিশুটি মানসিক স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যা তৈরি করে থাকে , তবে খারাপ হওয়ার আগে আপনি তাদের সবচেয়ে ভাল সহায়তা করতে পারেন।একটি শিশুর শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্য উভয়ই গুরুত্বপূর্ণ।

বাচ্চাদের সুস্বাস্থ্যের স্বাস্থ্যসেবা করতে হবে – একমাত্র চ্যালেঞ্জের সেবা পাওয়া যাবে এবং খাপ খাইয়ে দেখতে পারা যাবে না।

শিশুর সুস্বাস্থ্যের উপায়:

পিতামাতার পক্ষে তাদের সন্তানের শারীরিক চাহিদা সনাক্ত করা সহজ:

*পুষ্টিকর খাবার।

*পর্যাপ্ত আশ্রয় এবং ঘুম।

*অনুশীলন।

*টিকাদান।

*স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন।

শিশুর মানসিক সুস্থতা:

১.পরিবারের কাছের মানুষের থেকে নিঃশর্ত ভালবাসা

২.আত্মবিশ্বাস এবং উচ্চ আত্মসম্মান।

৩.খেলার সময়।

৪.শিক্ষক এবং সহায়ক তত্ত্বাবধায়কদের উৎসাহ দেওয়া।

৫.নিরাপদ এবং সুরক্ষিত পারিপার্শ্বিকতা।

৬.উপযুক্ত  শৃঙ্খলা।

৭.একটি উপযুক্ত সময়ে ঘুমানোর সময়।

৮. ভাল মানসিক স্বাস্থ্য শিশুদের স্পষ্টভাবে চিন্তাভাবনা করতে, 

৯.সামাজিকভাবে বিকাশ করতে ।

১০.নতুন দক্ষতা শিখতে দেয়। 

১.পরিবারের কাছের মানুষের থেকে নিঃশর্ত ভালবাসা:

বিশেষভাবে, বাচ্চাদের আত্মবিশ্বাস, উচ্চ আত্মমর্যাদাবোধ এবং জীবনে স্বাস্থ্যকর মানসিক দৃষ্টিভঙ্গি বিকাশে সহায়তা করার জন্য প্রাপ্তবয়স্কদের কাছ থেকে ভাল বন্ধুত্ব এবং উৎসাহজনক শব্দগুলি শিশু দের মন ভালো করতে সাহায্য করে।

প্রেম, সুরক্ষা এবং গ্রহণযোগ্যতা পারিবারিক জীবনে আবশ্যক।বাচ্চাদের বোঝাতে হবে যে আপনার ভালবাসা তার সাফল্যের মুখাপেক্ষী নয়।

অপরপক্ষে,পরাজয়গুলি প্রত্যাশিত এবং গ্রহণ করা উচিত। নিঃশর্ত ভালবাসা এবং আদর পূর্ণ বাড়িতে আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি পায়। শিশুদের সাথে খুব কম’ না’ বাচক শব্দ ব্যবহার করবেন। সব শিশুর  মানসিক চাহিদা এতটা সুস্পষ্ট নাও হতে পারে।

২.বাচ্চাদের আত্মবিশ্বাস এবং আত্ম-সম্মান লালন করুন:

কোন শিশুর সন্মানকে ছোট করে দেখা উচিত নয়।

শিশু দের আত্মসন্মান বোধ অনেকাংশে বেশী থাকে।

তাদের প্রশংসা করুন সকলের সামনে – বাচ্চাদের প্রথম পদক্ষেপ  শেখার ইচ্ছে শক্তি নির্ধারণ করে শিশুদের উৎসাহ মাত্রা ।শেখার আকাঙ্ক্ষা বিকাশে সহায়তা করে। বাচ্চারা সব  সময় কোনও নিরাপদ জায়গায় থাকতে বেশী স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।  খেলতে অনুমতি দিন যেখানে তারা আঘাত পেতে পারে না। তাদেরকে প্রায়শই হাসি এবং কথা বলে আশ্বাস দিন। অভিভাবক সব সময় বাচ্চা দের সাথে সক্রিয় ভাবে পাশে থাকবেন। আপনার মনোযোগ তাদের আত্মবিশ্বাস এবং আত্মমর্যাদাবোধ গড়ে তুলতে সহায়তা করে।

আপনার একটু সাহায্য  বাচ্চাদের এমন ক্রিয়াকলাপ তৈরী  করতে পারে যা তাদের আত্মবিশ্বাস বাড়ায়।

সহজ হন – আপনার ব্যর্থতাগুলি বাচ্চাদের কাছ থেকে আড়াল করবেন না। তাদের জন্য এটি জেনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে আমরা সকলেই ভুল করি । ভুল করা কোন অপরাধ নয়। ভুল করে আমরা সকলেই সঠিক টা শিখতে পারি।এই বদ্ধ ধারণা শিশুর মনে তৈরী করে দেবেন। খুব সহজেই আপনার শিশু আপনার কাছে অবলীলায় সত্যি কথা গুলো বলতে শিখে নেবে।বড়ো মানুষের ও ভুল হয় তারা ও সব সময় নিখুঁত নয় ,এই শব্দ গুলো বুঝিয়ে দেবেন। ফলে বাচ্চা দের দৃঢ়তা বাড়বে।সুস্থ স্বাভাবিক থাকবে।

ব্যঙ্গাত্মক মন্তব্যগুলি এড়িয়ে চলুন – যদি কোনও শিশু কোনও কাজে বা খেলায় অপটু হয় বা কোনও পরীক্ষায় ব্যর্থ হয় তবে শিশু র সাথে ভয় দেখিয়ে নয়, একটু ভালো বাসা দিয়ে যাচাই করার চেষ্টা করে নিন। শিশুরা  যেন পরবর্তী সময়ে সেই কাজ করতে পিছপা না হয় বা নিরুৎসাহিত না হয়ে পড়ে সে দিকে খেয়ালী হন। 

বাচ্চাদের উৎসাহিত করুন – কেবল তাদের সর্বোত্তম চেষ্টা করার জন্য নয়, প্রক্রিয়াটি উপভোগ করতেও। নতুন ক্রিয়াকলাপের চেষ্টা বাচ্চাদের টিম ওয়ার্ক, আত্মমর্যাদাবোধ এবং নতুন দক্ষতা সম্পর্কে শিক্ষা দেয়।

৩.খেলার সময়:

*অন্যান্য বাচ্চাদের সাথে খেলার সুযোগ।

*খেলার জন্য সময় তৈরি করুন!

*বাচ্চাদের খেলতে উৎসাহিত করুন,

*বাচ্চাদের কাছে খেলা খালি মজাদার তাই নয়।

* খেলার সময় তাদের বিকাশের জন্য যেমন খাদ্য এবং ভাল যত্নের পক্ষে গুরুত্বপূর্ণ।

* খেলার সময় শিশুদের সৃজনশীল হতে, 

*সমস্যা সমাধানের দক্ষতা শিখতে 

*আত্ম-নিয়ন্ত্রণ শিখতে সহায়তা করে। 

ভাল, হার্ডি খেলা, যার মধ্যে দৌড় এবং চিৎকার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে তা কেবল মজাদারই নয়, বাচ্চাদের শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ রাখতে সহায়তা করে।

বাচ্চাদের খেলার সময়ের বিশেষ ভাবে দরকার।

 বাচ্চাদের সব সময় তাদের সমবয়সীদের সাথে সময় কাটাতে দেবেন।

অন্যের সাথে খেলে বাচ্চারা তাদের শক্তি এবং নিজেদের  দুর্বলতাগুলি আবিষ্কার করে, একাত্মতার বোধ তৈরি করে এবং অন্যের সাথে কীভাবে চলতে হয় তা শিখায়। প্রতিবেশী, স্থানীয় কমিউনিটি সেন্টার, স্কুল বা আপনার স্থানীয় পার্ক এবং বিনোদন বিভাগের মাধ্যমে একটি ভাল বাচ্চাদের প্রোগ্রাম তৈরি করে বিষয়টি বিবেচনা করুন। এখানে পিতা-মাতা দুর্দান্ত খেলোয়াড় হিসেবে যোগ দিতে পারেন।

বাচ্চার সাথে কারণ ছাড়াই মজা করুন! কোনও সন্তানের সাথে একচেটিয়া খেলা বা রঙ করা আপনাকে তাদের একজন করে তুলবে ।কথায় আছে বাচ্চা দের সাথে বাচ্চা হন।সময় ভাগ করে নেওয়ার , একসাথে সময় কাটানোর দুর্দান্ত সুযোগ দেয়।

মজার জন্য খেলা নয়।জীবন কে মজাদার করে তোলার জন্য খেলা জরুরী।

আমাদের লক্ষ্য-ভিত্তিক সমাজে আমরা প্রায়শই কেবল সাফল্য এবং বিজয় স্বীকার করি। এই মনোভাবটি এমন শিশুদের জন্য নিরুৎসাহ এবং হতাশার হতে পারে যারা নতুন ক্রিয়াকলাপ শিখছেন এবং পরীক্ষা করছেন। বাচ্চাদের অংশগ্রহণ এবং তাদের উপভোগ করা আরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

টিভি ব্যবহার পর্যবেক্ষণ করা উচিত..

নিয়মিতভাবে টিভিটিকে “বেবি সিটার” হিসাবে ব্যবহার না করার চেষ্টা করুন।  কিছু অনুষ্ঠান বিনোদনমূলক পাশাপাশি শিক্ষামূলকও হতে পারে।

স্কুল মজা করা উচিত!

“স্কুল খেলা” তাদের স্কুল জীবনের একটি ঝলক দেওয়ার একটি ইতিবাচক উপায় হতে পারে।

তাদের প্রাক-স্কুল, হেড স্টার্ট বা অনুরূপ সম্প্রদায় প্রোগ্রামে নাম লেখানোর চেষ্টা করুন যা অন্যান্য বাচ্চাদের সাথে থাকার এবং নতুন বন্ধু তৈরি করার সুযোগ সরবরাহ করে। 

শিশুদের নতুন দক্ষতা এবং স্বাধীনতা অন্বেষণ এবং বিকাশের সুযোগ প্রয়োজন। একই সাথে, বাচ্চাদের শিখতে হবে যে কিছু নির্দিষ্ট আচরণ অগ্রহণযোগ্য। 

একটি পরিবারের সদস্য হিসাবে, বাচ্চাদের পরিবার ইউনিটের নিয়মগুলি শিখতে হবে। ন্যায্য এবং সামঞ্জস্যপূর্ণ নির্দেশিকা এবং শৃঙ্খলা সরবরাহ করুন। তারা এই সামাজিক দক্ষতা এবং আচরণের নিয়মগুলি স্কুলে এবং শেষ পর্যন্ত কর্মক্ষেত্রে নিয়ে যাবে।আচরণের সমালোচনা করুন, সন্তানের নয়।

আপনার রেটিং দিন:
[Total: 0 Average: 0]
আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন:

রেটিং ও কমেন্টস জন্য



নতুন প্রকাশিত